সিলেটের এমসি কলেজের ঘটনায় নতুন করে আরো একজনকে গ্রেফতার করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। জানা গেছে প্রশাসনকে ফাকিঁ দিতে এবং গ্রেফতার এড়াতে নিজের আত্মীয় বাড়িতে লুকিয়ে ছিল এই ঘটনার অন্যতম বড় আসামী রাজন। সোমবার ভোরে তাকে ফেঞ্চুগঞ্জ গ্রেপ্তার করা হয়।
এ সময় রাজনকে সহযোগিতায় করায় আইনুল নামের আরেক যুবককেও গ্রেপ্তার করা হয়। র‌্যাব ও ডিবি সূত্র জানায়, ছাত্রলীগ নেতা রাজন ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার কচুয়া নয়াটিলা এলাকা তার এক আত্মীয়ের বাড়িতে আত্মগোপনে রয়েছেন, এমন খবরে অভিযান চালায় তারা। অভিযানে রাজন ও তার সহযোগী আইনুলকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পর তাকে সিলেট নিয়ে আসা হয়েছে।

এর আগে রোববার রাতে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ থেকে শাহ্ মাহবুবুর রহমান রনিকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাবের একটি বিশেষ অভিযানিক দল। অন্যদিকে জেলার নবীগঞ্জ উপজেলা থেকে রবিউলকে গ্রেপ্তার করে হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ। এ নিয়ে চাঞ্চল্যকর এই ঘটনার মোট ৫ আসামিকে গ্রেপ্তার করা হল।

এছাড়া রোববার সকালে সুনামগঞ্জ থেকে মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমানকে আটক করে পুলিশ। এছাড়া একই সময় হবিগঞ্জের মাধবপুর সীমান্ত থেকে অর্জুন লস্করকে আটক করে সিলেট গোয়েন্দা পুলিশ।

শুক্রবার সন্ধার পরে সিলেটের এমসি কলেজে ঘটে গেছে এই আমনাবিক ঘটনা। সেখানে থাকা কলেজের ছাত্রলীগের নেতা কর্মিরা এই ঘটনা ঘটায়। এর পর থেকেই সারা দেশে এ নিয়ে একেবারে তোলপাড় শুরু হয়। এখন পর্যন্ত ফোন কলের মাধ্যমে এই ঘটনার সাথে জড়িত তিনজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।