রাজধানীর মাস্টার মাইন্ড স্কুলের ছাত্রী আনুশকাহ। এই নামটিই এখন সারা দেশের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছে। প্রতিনিয়তই এই ঘটনাটি রং বদলাচ্ছে পরতে পরতে। যার নতুন সংস্করন হয়েছে দিহানের বাসার দাড়োয়ানের বক্তব্য। দিহানের বাসার দারোয়ান দুলালকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ। গতকাল দুপুরে কলাবাগানের ডলফিন রোড থেকে তাকে হেফাজতে নেওয়া হয়। ঘটনার পর থেকে দুলাল পলাতক থাকলেও পুলিশ বলছে, নজরদারির মধ্যেই ছিলেন তিনি। হেফাজতে আনার পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার দিনের যে বর্ণনা তিনি দিয়েছেন, এর সঙ্গে দিহানের দেওয়া বর্ণনার অনেকটাই মিল পাওয়া গেছে।
ডিএমপির নিউমার্কেট জোনের এসি আবুল হাসান বলেন, ঘটনার পর থেকেই নজরদারিতে ছিলেন ওই বাসার দারোয়ান দুলাল। ঘটনার যথার্থতা যাচাইয়ে তার প্রয়োজন বোধ করায় তাকে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। তার দেওয়া বর্ণনার সঙ্গে দিহানের দেওয়া বর্ণনা মিলিয়ে দেখা হবে। যেহেতু দারোয়ান এজাহারভুক্ত আসামি নন, তাই তাকে আটক রাখা হবে কি না সে বিষয়ে নিশ্চিত করে বলতে পারছি না। তাকে জিজ্ঞাসাবাদের পরে যদি মনে হয় ছেড়ে দেওয়া উচিত, তাহলে ছেড়ে দেওয়া হবে।

এ দিকে এই ঘটনাটির বাকি কার্য সম্পন্ন হবে সুরতাহাল রিপোর্ট হাতে পাবার পরেই। কারন এটার উপরেই নির্ভর করছে মামলার ভাগ্য। তবে এই ঘটনার সুষ্ঠু বিচার চেয়েছেন দিহানের পরিবার।