রাজধানীর কলাবাগানের ঘটনায় স্তব্ধ এখন পুরো দেশ। তৈরী হয়েছে নতুন এক আলোচনার বিষয়। রাজধানীর মাস্টারমাইন্ড স্কুলের ০ লেভের ছাত্রি আনুশকার সাথে ঘটা এই ঘটনাটি এখন সাড়া ফেলেছে পুরো দেশে। বিশেষ করে ঘটনার মুল হোতা দিহান ও তার পরিবার নিয়ে শুরু হয়েছে সব থেকে বেশি আলোচনা সমালোচনা। রাজশাহীর দুর্গা’পুর উপ’জে’লার রা’তু’গ্রাম গ্রামের আবদুর রউফ সরকার। তার তিন ছে’লের মধ্যে দিহা’ন স’বার ’ছোট। অ’বসর’প্রা’প্ত আ;ব্দুর রউ;ফ ছিলেন জে’লা-রে;জিস্ট্রার। এ বাড়ি ছাড়া;ও জে’লার বা;গমা’রা উপজে’লার তাহেরপুরে তাদের আরও একটি বাড়ি আছে। রাজ;শাহী শহরেও আছে দু’টি বা;ড়ি। এর একটি সাগ;রপাড়া এলাকায়। আরেকটি বাড়ি মহা;নগরী;র পদ্মা; আ;বাসিক এলাকা;য়। ঢাকায়ও রয়েছে ফ্ল্যা;ট।
স্থানীয়রা জা;নান, বড় ছে’লে সুপ্তকে নিয়ে আবদুর রউফ সর;কার গ্রামে থাকেন। আর মা সানজি;দা সরকা;র শি;ল্পীর সঙ্গে দিহান ও তার মেজ ভাই নিলয় ঢাকা;য় থা;কেন। নিলয় একটি ব্যাং;কে চা;ক;রি করেন। ছোটবেলা থেকেই দিহান রা;জধানী ঢা;কায় থা;কেন। তাই তার স’ম্পর্কে গ্রা;মের; মানুষের ;ধা;রণা কম।

কেউ কেউ বি;শ্বা’সই ক;রতে চায় না দিহান এমন জ;ঘন্যতম কাজ করতে পারে তবে তারা এও মনে ক;রেন যে ঘটনাটি যদি প্রমাণিত হয় তবে দৃ;ষ্টান্তমূ;লক শা’স্তি হও;য়া দ;রকার।

দিহানের চা;চাতো ভা;ই কবির জানান, আমা’র চাচা রউফ সরকার গ্রামের বিভিন্ন দিক সেবা;মূ;লক কাজে নিজেকে নি;য়োজি;ত রেখে;ছেন। কিন্তু পত্র;পত্রি;কাতে তার বড় ছে’লের বিষ;য়ে যা লেখা হয়েছে তা ভি;ত্তি;হিন। তবে ছোট ছে’লের বি;ষয়ে তারা সত্যিই জানেন না কি ঘটেছে। বিষ;য়টি খতি;য়ে দে;খার কথাও তিনি বলে;ছেন।

দিহা;নের ভাই আরও বলেন, আমি ভয় পেয়ে যাই। তখ;নই আমা’র কর্মস্থ;ল থেকে বের হয়ে এসে;ছি। দি;হান বারবার ফোন দি;চ্ছে ’ভাই;য়া তুমি দ্রুত আ;সো।’ পরে দু;পুর ১টা ৫০-এর দি;কে আ;বার ফো;ন করে। তখ;ন বলে, ’ভাইয়া ও তো মা;রা গেছে’। তখ;ন আমি বলি, ’কে মা;রা গেল ঠিকঠাক মতো বলো’। দিহান বলে, ’তুমি হাস;পাতা’লে চলে আসো দ্রু;ত।’


এ দিকে ঘটনা ঘটার পরপরই দিহান সহ তার আরো ৩ বন্ধুকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এর পর থেকেই তারা রয়েছে পুলিশি হেফাজতে। তবে ছেড়ে দেয়া হয়েছে তার তিন বন্ধুকে কিন্তু তাদের ভাগ্যও এখন ঝুলে আছে আনুশকার রিপোর্টের উপরে। আর সেই সাথে দিহানেরও। এ দিকে এই মামলা নিয়ে দুই পরিবারের পক্ষ থেকে পাল্টাপাল্টি বেশ কিছু অভিযোগও করা হয়েছে।