বাংলাদেশের রাজনিতীতে কাদের মির্জার আলোচনা যেন থামছেই না। একের পর এক আলোচনা সমালোচনার শিকার হচ্ছেন তিনি। নিজের নানা ধরনের মন্তব্যের কারনে তিনি থাকছেন সব সময়ই আলোচনার খোরাক হিসেবে। সম্প্রতি বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা বলেন, ইসরাতুন্নেছা কাদেরের মিশন আমাকে মে’/রে’/ ফেলা আর ওবায়দুল কাদের সেই ষড়যন্ত্রের চোরাগলিতে পা দিয়েছেন। ইসরাতুন্নেছা ফেনীর অপরাজনীতির হোতা নিজাম হাজারী, নোয়াখালী অপরাজনীতির হোতা একরামুল করিম চৌধুরী, ফেনীর পৌরসভার মেয়র স্বপন মিয়াজি, কোম্পানীগঞ্জের মিজানুর রহমান বাদল ও ফখরুল ইসলাম রাহাতকে দিয়ে আমাকে ’/হ’/ত্যা’/ করার জন্য উঠে পড়ে লেগেছেন। গতকাল বুধবার বসুরহাট পৌরসভা কার্যালয়ে নিজ ফেইসবুক আইডিতে লাইভে এসে তিনি এসব কথা বলেন।
লাইভে আবদুল কাদের মির্জা বলেন, ৯ মার্চ কাল রাত্রিতে বাদল, মঞ্জু, রাহাতের নেতৃত্বে আমার পৌরসভা কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে পৌর কার্যালয়ের চারদিকে বৃষ্টির মতো ’/গু’/লি’/ করেছে। আমাকে হ’/ত্যা’/র’/ জন্য ৫০০ গুলি করেছে। এদের ’/গু’/লি’/তে’/ সিএনজি চালক আলাউদ্দিন নি’/হ’/ত হয়েছে। উলটো আলাউদ্দিন ’/হ’/ত্যা’/কা’/ণ্ডে’/র আমাকে প্রধান, আমার ভাই শাহাদাতকে দ্বিতীয় ও আমার সন্তান তাশিক মির্জাকে তৃতীয় আসামি করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন, তার দুর্নীতিবাজ স্ত্রী ইসরাতুন্নেছাকে দিয়ে আমাকে হ’/ত্যা’/র’/ পরিকল্পনা করতেছেন। উপজেলা চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিনকে সরিয়ে মা’/দ’/ক সম্রাট মিজানুর রহমান বাদলকে উপজেলা চেয়ারম্যান করবে। আমাকে ’/হ’/ত্যা’/ করে তথাকথিত ভূমিদস্যু মাদক সম্রাট ও ’/অ’/স্ত্র’/ ব্যবসায়ী ফখরুল ইসলাম রাহাতকে বসুরহাট পৌরসভার মেয়র বানানোর পরিকল্পনা করছে। আল্লাহ যদি সত্য হয়ে থাকে, কোম্পানীগঞ্জের মানুষ বেঁচে থাকতে সে পরিকল্পনা ভেস্তে যাবে।

আওয়ামী লীগের দুপক্ষের পালটাপালটি কর্মসূচি, প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞা

এদিকে ২৫ ও ২৬শে মার্চ স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। ২৩ মার্চ গণমাধ্যমে পাঠানো বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা ঘোষিত ও বাদল সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগ পালটাপালটি কর্মসূচির ঘোষণা দেন।

গেল বসুরহাট নির্বাচনের আগে থেকে শুরু করে হয় তার নানা ধরনের সত্যবচন বলেছেন। আর এই সব সত্যবচণের কারনে তিনি এসেছেন আলোচনায়। বিশেষ করে নিজের দল এবং নিজের ভাইয়ের নামে নানা ধরনের সমালোচনা করে তিনি উঠে এ্সেছেন আলোচনায়। আর এই সব কারনে তিনি এখন হয়ে উঠেছে তার নিজ দলের নেতা কর্মীদের কাছেই চক্ষুসুল।