বাংলাদেশে তৈরী হচ্ছে বাংলাদেশের মানুষের সব থেকে বড় স্বপ্নের প্রজেক্ট পদ্মা সেতু। ধীরে ধীরে দৃশ্যমান হচ্ছে এই সেতু। তবে এই সেতুতে হাটার বা সাইকেল চালানোর কোন ধরনের ব্যবস্থা নেই।সড়কে দ্রুতগামী যানবাহনের সঙ্গে ধীরগতির যান চলাচলে বিভিন্ন সময়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয়। এছাড়া সড়কে ধীরগতির যানবাহনের কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়। দুর্ঘটনা ও নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে পদ্মা সেতুতে সাইকেল ও পায়ে হাঁটার লেন রাখা হয়নি বলে জানিয়েছে সেতু কর্তৃপক্ষ।
পদ্মা সেতুতে সাইকেল ও পায়ে হাঁটার লেন রাখা হয়নি। তবে সিএনজি চলবে কিনা সেটি সরকার সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানায় সেতু কর্তৃপক্ষ। আরটিভি

পদ্মা সেতুর সহকারি প্রকৌশলী আহমেদ আহসান উল্লাহ মজুমদার বলেন, পদ্মা সেতুতে দুই চাকার যানের মধ্যে শুধু মোটরসাইকেল চলবে।

তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতুতে পায়ে হেঁটে চলার সুযোগ নেই। রেলপথে শুধু রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীরা পায়ে হেঁটে চলাচল করতে পারবে। সেতুর এক নম্বর পিলার ও ৪২ নম্বর পিলারে ওঠা-নামার জন্য সিঁড়ি রাখা হবে, যা কেবল সেতু সংশ্লিষ্টদের কাজে ব্যবহৃত হবে।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী (সড়ক) সৈয়দ রজব আলী বলেন, পদ্মা সেতুতে দ্রুতগামী যানবাহন চলাচল করবে। ধীরগতির যানবাহন চলাচল করলে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে, সেজন্য সাইকেল চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়নি। রিকশা-ভ্যানও সেতুতে চলাচল করবে না। সিএনজি চলবে কিনা এটি সরকারের সিদ্ধান্ত।

এ দিকে সেতু মন্ত্রী জনাব ওবায়দুল কাদের বলেছেন আগামী বছরই একেরবারেই দৃশ্যমান হবে। পিছ ঢালাইয়ের কাজও শুরু হয়ে যাবে আগামী বছরই। সব মিলিয়ে পদ্মা সেতুর কাজ এখন চলছে বেশ গতীময় বেগ রেখে।