বাংলাদেশ-ভারত একটা সম্পর্কের অবনতিতে ছিল। হাসিনা সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে ভারতের সাথে আমার সম্পর্ক ঘনিষ্ঠ হয়। এরপর যখন ভারতের শাসন এ বিজেপি আসে তখন সম্পর্ক আরো ঘনিষ্ঠ রূপ নেয়।তবে সাম্প্রতিক সময়ে বেশ কয়েকটি ঘটনা ভারত এবং বাংলাদেশের সম্পর্ক নিয়ে ভাবিয়ে তুলেছে সকলকে। বিশেষ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর এরপর বেশ কয়েকটি সফর বাতিল করেছে বাংলাদেশ। এরপর থেকে মূলত ঢাকা ও দিল্লির দূরত্ব বাড়তে থাকে। তবে রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের এই বিষয়টি স্বীকার না করলেও গণমাধ্যমে ফলাও করে ছাপা হচ্ছে। এবার তেমন একটি প্রতিবেদন তুলে ধরেছে ভারতের প্রভাবশালী পত্রিকা আনন্দবাজার। পাঠকদের উদ্দেশে আনন্দবাজারের সেই প্রতিবেদন তুলে ধরা হলো:-

ঢাকা ও দিল্লির কূটনৈতিক সম্পর্ক নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ভারতের প্রভাবশালী বাংলা গণমাধ্যম আনন্দবাজার পত্রিকা। পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো।

নতুন নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি নিয়ে ভারত-বাংলাদেশের চলতি টানাপড়েনের আবহেই মার্চে ঢাকা সফরের কথা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে শুরু হয়ে এক বছর বাংলাদেশে চলবে শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠান। মূল অনুষ্ঠান ঠিক কোন সময়ে রাখা হবে, তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি। মার্চ মাসেই তা হওয়ার সম্ভাবনা।

কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, বাংলাদেশের সঙ্গে সাম্প্রতিক অতীতে যে মন কষাকষি চলছিল তাতে ঘৃতাহুতি হয়েছে নতুন নাগরিকত্ব আইন পাস। পাকিস্তানের সঙ্গে বাংলাদেশকে এক বন্ধনীতে রেখে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বার বার উল্লেখ, ফের ভারত থেকে শরণার্থী যাওয়ার আশঙ্কা, শেখ হাসিনার সাম্প্রতিক কলকাতা সফরে কেন্দ্রের কোনও প্রতিনিধির না থাকা— সব মিলিয়ে বাংলাদেশে ভারত-বিরোধিতা তীব্র হয়েছে। তার জেরে সম্প্রতি দু’জন বাংলাদেশের মন্ত্রী এবং একটি সরকারি প্রতিনিধি দলের বাংলাদেশ সফর বাতিল করে দিয়েছে ঢাকা।
এই অবস্থায় প্রতিবেশীদের মধ্যে একমাত্র ভরসাযোগ্য রাষ্ট্র বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কের চলতি গ্রহণ-দশা কাটাতে, বাড়তি পদক্ষেপ করতে চাইছে সাউথ ব্লক। প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর অবশ্যই সেই উদ্যোগের প্রধান বিষয়। হর্ষবর্ধন শ্রিংলাকে পরবর্তী পররাষ্ট্র সচিবের দায়িত্বে এনেও বাংলাদেশ-সহ প্রতিবেশী দেশগুলিকে বার্তা দিতে চাইছে মোদি সরকার। বাংলাদেশ, মিয়ানমার এবং শ্রীলঙ্কার ভারপ্রাপ্ত যুগ্ম সচিব হিসেবে আগে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছেন হর্যবর্ধন। ঢাকায় শুধু ভারতীয় হাইকমিশনারের দায়িত্বই সামলাননি, সে দেশে তাঁর জনপ্রিয়তাও ছিল বিপুল।

শেখ মুজিবের শতবর্ষ উৎসবে তাঁকে নিয়ে তথ্যচিত্র থেকে শুরু করে বিভিন্ন প্রকল্প এবং অনুষ্ঠানে জড়িয়ে রয়েছে ভারত। সূত্রের খবর, শ্রিংলা জানুয়ারির শেষে দায়িত্ব পাওয়ার পরই এই অনুষ্ঠানগুলিকে সফল করার কাজে হাত দেবেন। ঢাকাতেও যাবেন তিনি। এই উৎসবকে সামনে এনে নতুন বিদেশ সচিবের নেতৃত্বে বিভিন্ন স্তরে বাংলাদেশের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ানোর কথা ভাবা হচ্ছে। চেষ্টা করা হচ্ছে মেঘ কাটাতে।

অক্টোবর মাসে দিল্লি সফরে এসে শেখ মুজিবের জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানান শেখ হাসিনা। পাশাপাশি বিশ্বের বেশ কয়েকটি দেশের নেতা-সহ কয়েক জন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বাংলাদেশের পক্ষে। সেই তালিকায় রয়েছেন, ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগিয়েল ওয়াংচুক, জাতিসংঘের প্রাক্তন মহাসচিব বান কি মুন, ইউনেস্কোর প্রাক্তন মহাসচিব ইরিনা বুকোভা ও আরব লিগের প্রাক্তন মহাসচিব আমর মুসার নাম। আমন্ত্রণের তালিকায় আরও রয়েছেন ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, বিজেপির প্রবীণ নেতা এল কে আদাভানি, জার্মানির চ্যান্সেলর আঙ্গেলা মার্কেল, কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মহাথির মোহম্মদ প্রমুখ।


প্রসঙ্গত, চলতি মাসের ১২ ই ডিসেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন এর সঙ্গে ভারতের একটি সফরের তারিখ হয়েছিল। ঠিক তার আগেই পাস হয় ভারতের নাগরিকত্ব বিল। আরে বিল পাস হওয়ার পর থেকেই ভারতের সেই সফর বাতিল করে দেয়া হয় বাংলাদেশ থেকে। এখান থেকে শুরু হয় বাংলাদেশ ভারতের দ্বন্দ্বে বিষয়। অন্তত ভারতীয় মিডিয়াগুলো ফলাও করে খবর গুলো চাপাচ্ছে। ভারতীয় মিডিয়ার মতে নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বাংলাদেশের সমস্যা এবং এ কারণে একের পর এক সফর গুলো বাতিল করা হয়েছে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে।