গেল বছরটি করোনার কারনে একেবারেই নাজেহাল ছিল পুরো বিশ্ব। বিশেষ করে বিশ্বের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ ছিল একেবারেই। সব দেশগুলো বন্ধ করে দিয়েছিল বিমান চলাচল। আর করোনার প্রকোপ এখনো থাকলেও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে নতুন করে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০২১ সালে বিমান ভ্রমণের জন্য নিরাপদ এয়ারলাইন্সের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। সোমবার (৪ জানুয়ারি) এয়ারলাইন্স রেটিংস ডটকম প্রকাশিত ওই তালিকার শীর্ষে রয়েছে অস্ট্রেলিয়ান বিমান পরিবহন সংস্থা কান্তাস এয়ারলাইন্স। কান্তাস বিশ্বের তৃতীয় পুরনো এয়ারলাইন্স এবং বহর ও আন্তর্জাতিক গন্তব্যের বিচারে সবচেয়ে বড় বিমান পরিবহন সংস্থা।

দুর্ঘটনা, ঝুঁকিপূর্ণ ঘটনা মোকাবিলা ও বহরে থাকা বিমানের বয়স বিবেচনায় ৩৮৫টি এয়ারলাইন্সকে আমলে নিয়ে এই তালিকা তৈরি করা হয়েছে।

এয়ারলাইন্স রেটিংসের প্রধান সম্পাদক জিওফ্রি থমাস এই তালিকা প্রসঙ্গে মার্কিন সংবাদ সংস্থা সিএনএনকে বলেন, সবচেয়ে কঠিন কাজগুলোর মধ্যে এটা একটা। কারণ, করোনার কারণে ২০২০ সালে অনেক এয়ারলাইন্সই বহর বন্ধ রেখেছে। তবে, আমাদের করা তালিকার প্রথম ২০টি এয়ারলাইন্সই সচল ছিল। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারা গন্তব্য ও ফ্লাইট সংখ্যা হয়তো সীমিত করেছে।

এয়ারলাইন্সের নিরাপত্তাবিষয়ক বিভিন্ন ইস্যু নিয়ে কাজ করা বিশ্বখ্যাত সংস্থা এয়ারলাইন্স রেটিংয়ের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, আকাশপথে চলাচলের জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত ও সতর্কতা অবলম্বন করে থাকে কান্তাস। করোনাকালে বিমান চালানোর আগে এয়ারলাইন্সটির ৭৩৭ জন পাইলটকে অবশ্যই ৭ দিনের বিশেষ প্রশিক্ষণ শেষ করতে হয়েছে এবং আগামীতেও বিরতি ভেঙে আবার বিমান ওড়ানোর আগে পাইলটদের তা করতে হবে।

বিমান ভ্রমণের জন্য নিরাপদ শীর্ষ ২০টি এয়ারলাইন্স:
কান্তাস, কাতার এয়ারওয়েজ, এয়ার নিউজিল্যান্ড, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স, এমিরেটস, ইভা এয়ার, ইতিহাদ এয়ারওয়েজ, আলাস্কা এয়ারলাইন্স, ক্যাথি প্যাসিফিক এয়ারওয়েজ, ব্রিটিশ এয়ারওয়েজ, ভার্জিন আটলান্টিক, হাওয়াইয়ান এয়ারলাইন্স, সাউথওয়েস্ট এয়ারলাইন্স, ডেল্টা এয়ারলাইন্স, আমেরিকান এয়ারলাইন্স, এসএএস, ফিনএয়ার, লুফথানসা, কেএলএম, ইউনাইটেড এয়ার


এ দিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে নতুন করে শুরু হয়েছে নানা ধরনের সমস্যা। যার ফলে আবারো বিশ্বের বেশ কয়েকটি বন্ধ করে রেখেছিল বিমান চলাচল। তবে ২০২১ এ করোনার তান্ডব থাকলেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচলের ব্যবস্থা করা হবে।