করোনা ভাইরাস সারা বিশ্বের মানুষের একটি পরিচিত এবং ভয়ের নাম। আর এই করোনা ছড়ায় সর্বপ্রথম চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানি উহান থেকে। এর পর এই ভাইরাসটি ছড়ায় পুরো চীনে। শুধু চীনেই সীমাবদ্ধ থাকেনি এই ভাইরাসটি। এখন বিশ্বের প্রায় ১৫৭টি দেশে ছড়িয়েছে এই ভাইরাসটি। বলতে গেলে আর কিছুদিনের মধ্যে বিশ্বের সব কয়টি দেশে ছড়াবে এই ভাইরাস।তাই করোনা ছড়ানোর দায়ে ভারতের মুজাফফরপুর আদালতে চীনের রাষ্ট্রপতি শি জিনপিং এবং রাষ্ট্রদূত সন বেই ডোঙ্গের বিরুদ্ধে একটি মামলা করা হয়েছে।

মামলাটি করেছেন সুধীর ওঝা নামে একজন। মামলার পরবর্তী শুনানি হবে ১১ ই এপ্রিল। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে পরবর্তী শুনানির জন্য দিনটি ধার্য্য করে। খবর এনডিটিভির

অভিযোগকারী তার আবেদনে উল্লেখ করেন, যে করোনা ভাইরাস তৈরি করে গোটা বিশ্বে আতঙ্ক ছড়িয়ে দিয়ে, বিশ্বের মানুষকে আসলে ভয় দেখানো হচ্ছে। আতঙ্কের মধ্যে ফেলে দেওয়া হয়েছে মানুষকে। আইপিসি ২৬৯, ২৭০,১০৯,১২০বি ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অভিযোগকারী সুধীর ওঝা জানিয়েছেন, ইচ্ছাকৃতভাবে ষড়যন্ত্র করে চীন এই ভাইরাস তৈরি করে, ছড়িয়ে দিয়েছে। গোটা বিশ্বে আতঙ্ক তৈরি করার জন্য এই কাজ করেছে তারা। আর সেই কারণেই মুজাফফরপুর আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলাটি আদালত গ্রহণ করেছে এবং জানিয়েছে শুনানির পরবর্তী দিন ১১ এপ্রিল ২০২০।

এখনও পর্যন্ত করোনা ভাইরাসের ৭ টি সংক্রমনের ঘটনা দিল্লি থেকে পাওয়া যাচ্ছে। উত্তরপ্রদেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্তের সংখ্যা ১২, কর্নাটকে ৬ জন, মহারাষ্ট্রে ৩৩, লাদাখে তিনজন এবং জম্মু-কাশ্মীরে দুজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া তেলেঙ্গানাতে ৩ এবং রাজস্থানে দুটি ঘটনা সামনে এসেছে।

তামিলনাড়ু ,অন্ধ্রপ্রদেশ ,পঞ্জাবে করোনাভাইরাসের একজন করে সংক্রমনের ঘটনা ঘটেছে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মোট ১১০ জনের শরীরে সংক্রমণ ঘটেছে। এর মধ্যে বিদেশি ১৭ জন। এদের মধ্যে ১৬ জন ইতালির নাগরিক। তবে অসুস্থদের মধ্যে কেরালায় তিনজনকে নিয়ে মোট ১৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।


উল্লেখ্য, দিন দিন সারা বিশ্বের জন্য ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে এই ভাইরাসটি। ইতিমধ্যে এই ভাইরাসটিতে সারা বিশ্বে আক্রান্ত হয়েছে ১,৮২,৭২৫ জন। এর মধ্যে স্বস্থির বাণী এই যে ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছে ৭৯,৮৮৩ জন। তবে সারা বিশ্বের সব দেশের মধ্যে বর্তমানে ইতালির অবস্থা সব থেকে খারাপ। দেশটিতে এখন পর্যন্ত দুই হাজারেরও অধিক মানুষের প্রাণ না শ হয়েছে এই করোনা ভাইরাসের কারনে।