সারা বিশ্বে করোনার ভ্যাকসিন প্রয়োগ শুরু হয়ে গেছে। করোনায় অস্থির হয়ে পড়া বিশ্ব শেষ পর্যন্ত দেখতে শুরু করেছে আশার আলো। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ নিতে শুরু করেছে এই করোনার টীকা। এ দিকে স্যালাইন ও পানি দিয়ে বানানো নকল টিকা লাখ লাখ ডলারে বিক্রির ঘটনার হোতাকে চীনে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁর নাম কং।
বিবিসির আজ মঙ্গলবারের খবরে জানা যায়, কং স্যালাইন ও মিনারেল ওয়াটার দিয়ে ৫৮ হাজার ডোজ নকল টিকা বানান। এর আগে তিনি আসল টিকার মোড়কের নকশা নিয়ে গবেষণা করেন। এরপর সেই আদলে নকল টিকা বানান।

এই নকল টিকাগুলো বিদেশেও পাচার করা হয়। তবে কোথায় সেগুলো পাঠানো হয়েছে, তা জানা যায়নি।

করোনার টিকাসংক্রান্ত জালিয়াতি নিয়ে দেশটিতে ৭০ জনকে আটক করা হলো। ২০টির বেশি জালিয়াতির মামলায় তাঁদের আটক করা হয়। বেইজিং নকল টিকা কেলেঙ্কারির ঘটনা বন্ধে জোরালো পদক্ষেপ নেওয়ার অঙ্গীকার করেছে।

?auto=format%2Ccompress&format=webp&w=720&dpr=1.0

টিকা নিয়ে জালিয়াতির ঘটনাগুলোর বেশির ভাগ সামনে আসে গত বছরের শেষ দিকে। তবে চলতি সপ্তাহে ঘটনাগুলো জানা গেছে বিস্তারিতভাবে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, কং ও তাঁর দল গত বছরের আগস্টের দিকে সিরিঞ্জ বোতলের ভেতরে স্যালাইন ও মিনারেল পানি ভরে টিকা হিসেবে বাজারজাত করেন। এভাবে তাঁরা ২৭ লাখের বেশি ডলার হাতিয়ে নেন। গত বছরের নভেম্বর মাসে নকল টিকার ৬০০ ডোজ হংকংয়ে পাঠানো হয়। আসল প্রস্তুতকারকদের অভ্যন্তরীণ চ্যানেলগুলো ব্যবহার করে নকল এই টিকাগুলো বিক্রি করা হয়েছিল।

নকল টিকাগুলো বেশি দামে বিভিন্ন হাসপাতালে বিক্রি করা হয়। আরও কিছু অপরাধী গ্রামাঞ্চলে বাড়ি বাড়ি গিয়ে নকল টিকা সরবরাহ করে।

চীনের সুপ্রিম পিপলস প্রসিকিউরেটোরেট নকল টিকার ঘটনায় পুলিশকে সহযোগিতা করতে আঞ্চলিক সংস্থাগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

গত সপ্তাহে চীনে নতুন চান্দ্রবর্ষ উদ্‌যাপনের আগেই ১০ কোটি টিকার ডোজ আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন কর্মকর্তারা। যদিও ওই সময় পর্যন্ত মাত্র চার কোটি মানুষকে টিকা দিতে পেরেছে চীন। তবে কঠোর লকডাউন, করোনা পরীক্ষার মাধ্যমে চীনে মহামারি পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।

চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে ২০১৯ সালের শেষের দিকে ছড়িয়ে পড়ে করোনা ভাইরাস। একটা সময়ে শুধু চীনে করোনা ভাইরাসের প্রকোপ থাকলেও ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে এই করোনা ভাইরাস। এরপর থেকে বিশ্বের ২১৫ টিরও বেশি দেশে এই করোনা ছড়ায়। স্তব্ধ হয়ে যায় পুরো বিশ্ব। তবে স্বস্তির খবর এই যে করোনা ভাইরাস নির্মুলে ভ্যাকসিন এসে গেছে।