দেশে তৈরী হচ্ছে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য। আর এ নিয়েই এখন উত্তাল সারা দেশ। বিভিন্ন মানুষ বিভিন্ন ভাবে এ নিয়ে কথা বলে যাচ্ছেন। বিশেষ করে দেশের আলেম সমাজ এবং দেশের সরকার দলীয় নেতা কর্মীদের সাথে এ নিয়ে চলছে বেশ আলোচনা সমালোচনা। এবার নিয়ে একটি লেখনি লিখলেন আনিস আলমগীর নামের একজন কলামিষ্ট। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তার সেই লেখনি তুলে ধরা হলো হুবহু।
বাংলাদেশে ভাস্কর্য থাকবে, মূর্তি থাকবে, রবীন্দ্র সংগীত থাকবে, গজল থাকবে, জারি-সারি পালা গান থাকবে। নাটক-সিনেমা থাকবে, ওয়াজও থাকবে।
নামাজ থাকবে, পূজাও থাকবে। আবার কোনোটাই পালন না করার অধিকারও থাকবে। মসজিদ, মন্দির, গির্জা, প্যাগোডা –আরও যা যা দরকার সব থাকবে।
১৯৭১ সালেই পাকিস্তানপন্থীদের পরাজয়ের মধ্য দিয়ে এই সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে। যারা এসব মানতে পারবেন না তারা দেশদ্রোহী। ভারত-পাকিস্তান যাওয়ার চেষ্টা করুন। তারাও আপনাদের গ্রহণ করবে কিনা জানিনা।
না করলে কি আর করবেন! বঙ্গোপসাগরে ঝাঁপ দেন।

ভাস্কর্য তৈরী নিয়ে এখনো স্থির কোন সংবাদ জানা যায়নি। তবে এ নিয়ে দেশের আলেম সমাজ বেশ স্বোচ্চার হয়ে আছেন। প্রতিদিনই তারা এটা নিয়ে সমাবেশ এবং বিক্ষোভ করে যাচ্ছে। তবে এ নিয়ে বেশ নাছোর বান্দা হয়ে আছেন সরকার দলীয় নেতা কর্মীরাও।