প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চার দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে গত বৃহস্পতিবার সকালে নয়াদিল্লি গেছেন। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আমন্ত্রণে মুলত এই সফর।সূত্র মতে জানা যায় সফরের প্রথম দুই দিনে প্রধানমন্ত্রী বিশ্ব অর্থনৈতিক ফোরাম আয়োজিত ’ইন্ডিয়া ইকোনমিক সামিট’-এ যোগ দিয়েছিলেন। গতকাল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সাথে বৈঠক করেন এই বৈঠকে প্রায় ৬ টি স্মারক সমাঝোতা চুক্তি সই হয়।গতকাল শনিবার দুপুরে ভারতের রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন হায়দ্রাবাদ হাউসে এ শীর্ষ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আজ প্রধানমন্ত্রীর দেখা করেন ভারতের বিরোধী দলের নেত্রী প্রিয়াংকা গান্ধী সঙ্গে। আর তাতে বেশ উচ্ছাস্বিত প্রিয়াংকা গান্ধী।বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকের পর তাকে অনুপ্রেরণা হিসেবে উল্লেখ করেছেন ভারতের বিরোধী দল কংগ্রেস নেতা প্রিয়াংকা গান্ধী ভদ্র। বৈঠক শেষে এক টুইট বার্তা প্রিয়াংকা শেখ হাসিনাকে বড় ধরনের অনুপ্রেরণা হিসেবে উল্লেখ করেন।

টুইটারে প্রিয়াংকা গান্ধী বলেছেন, শেখ হাসিনার বৈশিষ্ট্য হলো তিনি যা বিশ্বাস করেন সেটির জন্য সাহস ও অধ্যবসায়ের সঙ্গে লড়াই করা। তিনি লিখেছেন, ’শেখ হাসিনাজির কাছ থেকে প্রতীক্ষিত আলিঙ্গন পেলাম। দীর্ঘদিন ধরে তার সঙ্গে পুনরায় সাক্ষাতের অপেক্ষায় ছিলাম। স্বজন হারানো ও প্রতিকূলতা মোকাবিলায় তার শক্তি এবং যা বিশ্বাস করেন সেটির জন্য সাহস ও অধ্যাবসায়ের সঙ্গে লড়াইয়ের কারণে তিনি সব সময় আমার কাছে বড় ধরনের অনুপ্রেরণা’।

এর আগে কংগ্রেস নেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাতে কংগ্রেস নেতাদের মধ্যে উপিস্থিত ছিলেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং, কংগ্রেস সভাপতি সোনিয়া গান্ধী, প্রিয়াংকা গান্ধী ও আনন্দ শর্মা।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, উভয় দেশের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক আরও শক্তিশালী করতে কংগ্রেস নেতারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলোচনা করেছেন।

চার দিনের সফরে ভারত অবস্থান করছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনিই বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি ক্ষমতায় থাকা নেতা। ২০০৯ সালে দ্বিতীয়বার যখন ক্ষমতায় ছিলেন তখন ভারতের কেন্দ্রে ছিল কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউপিএ সরকার। ২০১১ সালে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে বাংলাদেশ সফর করেছিলেন মনমোহন সিং।

শনিবার ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেছেন শেখ হাসিনা। দু’দেশের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকের পর এক যৌথ বিবৃতিতে বলা হয়, ’প্রধানমন্ত্রী মোদি (শেখ হাসিনাকে) অবহিত করেছেন যে তার সরকার ভারতে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষকে নিয়ে সম্ভাব্য দ্রুততম সময়ে চুক্তিটি সম্পাদনের জন্য কাজ করছে।’

’২০১১ সালে দুই সরকারের সম্মতি অনুযায়ী তিস্তা নদীর পানি বণ্টনে ফ্রেমওয়ার্ক অব ইন্টেরিম এগ্রিমেন্ট আশু স্বাক্ষর ও বাস্তবায়ন’-এর জন্য বাংলাদেশের জনগণ অপেক্ষায় রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন মন্তব্যের প্রেক্ষিতে দ্রুততম সময়ে তিস্তা চুক্তির আশাবাদ ব্যক্ত করেন মোদি।

প্রসঙ্গত, ভারতের রাজনীতিতে একেবারেই আনকোরা নতুন মুখ প্রিয়াংকা গান্ধী। নতুন হলেও এ মুখের সঙ্গে অতীতের জনপ্রিয় ও প্রিয় মুখ ইন্দিরা গান্ধীকে মেলাচ্ছেন অনেকেই। অনেকেই আবার তাকে দিচ্ছেন ’ভারতের মুকুটহীন রানী’র অভিধা। আর ক্ষমতাসীন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্য এখানেই লুকিয়ে রয়েছে সমূহ বিপদ। সর্বশেষ জাতীয় নির্বাচনে বিরোধী দল বিজেপির কাছে বেশ বড় ব্যবধানে পরাজিত হন তিনি।