বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। দীর্ঘদিন ধরে দুর্নীতির দায়ে সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বন্দি আছেন কারাগারে। তার কারাবাসের মেয়াদ হয়ে গেছে প্রায় ২ বছরেরও বেশি সময়। তবে দেখা মেলেনি জামিনের। এবার মুজিববর্ষের দোহায় দিয়ে মানবিক কারণে খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে এক আইনজিবী রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন পত্র পাঠিয়েছেন এক আইনজীবী। আজ মঙ্গলবার সকালে ডাকযোগে এই আবেদন পাঠানো হয়েছে।
আবেদনে তিনি বলেছেন, ’অসুস্থতার কথা বিবেচনা করে সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীকে মুক্তি দিতে অনুরোধ করছি।’

মুজিববর্ষে মানবিক কারণে সংবিধানের প্রস্তাবনা, ১১, ৪৮(৩), ৪৯ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী খালেদা জিয়ার দণ্ড মওকুফের জন্য রাষ্ট্রপতি বরাবর আবেদন করেছেন সুপ্রিম কোর্টের এই আইনজীবী।

এর আগে গত ৪ মার্চ খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে সরকারের কাছে আবেদন করে তার পরিবার। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বরাবর এ চিঠি দেন খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার।

খালেদা জিয়া বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে কারা হেফাজতে চিকিৎসাধীন। তার মুক্তি চাওয়া চিঠিটি একই দিনে বিএসএমএমইউ হাসপাতালেও পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারী তে সাজা প্রাপ্ত হয়ে কারাগারে বন্দি হন বেগম খালেদা জিয়া। জিয়া অরফানেজ ট্রাষ্ট দুর্নীতি মামলায় তাকে এই সাজা দেয়া হয়। এর পর থেকে বিএনপির পক্ষ থেকে নানা ধরনের আন্দোলন চালানো হলে তেমন কোন আশার আলো দেখা যায়নি। বার বার তার জামিন শুনানী দেয়া হলেও কোন না কোন কারনে তা স্থগিত হয়ে গেছে।