বাংলাদেশের স্বাধীনতা সূবর্ণজয়ন্তি এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ১০১ তম জন্মদিন উপলক্ষ্যে এবার বাংলাদেশে আয়োজন করা হয়েছে বড় অনুষ্ঠান। আর এই উপলক্ষ্যে দেশে আসছে বেশ কয়েকটি দেশের রাষ্ট্রপ্রধানরা। এ দিকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর আগমন নিয়ে সব থেকে আলোচনা হচ্ছে বেশি।
এ নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেছেন,’নরেন্দ্র মোদি বিজেপি নেতা হিসেবে নন, তিনি বাংলাদেশ সফরে আসছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে’ বলে জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সাফল্য কামনা করে বলেন, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে সহযোগিতা করা প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রীর বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তীর অনুষ্ঠানে যোগ দেওয়ায় আনন্দিত।

আজ বৃহস্পতিবার ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামী সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন তিনি। বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফর নিয়ে মন্ত্রী আরও বলেন, দীর্ঘদিনের সীমান্ত চুক্তিসহ ছিটমহল বিনিময় ছাড়াও দু’দেশের মধ্যে ব্যবসা-বাণিজ্য বৃদ্ধি পেয়েছে এবং তিস্তাসহ অভিন্ন নদীর পানিবণ্টনে ইতোমধ্যে ইতিবাচক অগ্রগতি হয়েছে।

বঙ্গবন্ধুকে স’/প’/রি’/বারে ’/হ’/ত্যা’/র পর ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পর্কের কৃত্রিম দেয়াল রচিত হয়েছিল উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, দীর্ঘসময় পর শেখ হাসিনা সরকার প্রথম মেয়াদে দায়িত্ব নেওয়ার পর সম্পর্কের নতুন সেতুবন্ধ রচিত হয়। এর মাধ্যমে দুই দেশের সরকারের পাশাপাশি পিপল টু পিপল কন্টাক্ট নতুন উচ্চতা লাভ করবে।

জানা গেছে আগামী ২৭ তারিখ বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখবেন মোদী। এবং তিনি বাংলাদেশে দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরের জন্য অবস্থান করবেন। আর এই রাষ্ট্রীয় সফরে এসে এবার বেশ কয়েকটি বিষয় নিয়ে তিনি গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা করবেন। সেই সাথে সফর করবেন বেশ কিছু জায়গায়ও।