মধ্যরাতে প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে দেখা করতে গিয়ে আপত্তিকর অবস্থায় হাতেনাতে আটক হন আনোয়ার নামে এক এসএসএসের এনজিওকর্মী। এসময়ে আটকের পর ঐ এনজিও কর্মীকে গ/ণ/ধো/লা/ই দেয় এলাকাবাসী। শুক্রবার (৪ জুন) রাতে এ ঘটনাটি ঘটে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার দাইন্যা ইউনিয়নের বাসার চর এলাকায়। এ ঘটনায় পুরো এলাকাজুড়ে বইছে ব্যাপক শোরগোল।
এদিকে শনিবার (৫ জুন) এ বিষয় নিয়ে মীমাংসা করার জন্য দফায় দফায় বৈঠক হয়। মীমাংসায় মাতবররা বিভিন্ন অপরাধ দিয়ে দুই বাচ্চার জননীকে কাজী দিয়ে তালাক ব্যবস্থা করে এলাকা ছাড়ার ঘোষণা দেন। ঘোষণার পর পরই প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে থাকা স্বর্ণালঙ্কার ছিনিয়ে নেন তার শ্বশুর-শাশুড়ি। মীমাংসা শেষে এনজিও কর্মী আনোয়ারকে ছেড়ে দেয়া হয়।

অভিযুক্ত আনোয়ার, ভুঞাপুর উপজেলার নিকরাইল বাসিন্দা।



দাইন্যা ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য বাবুল মণ্ডল বলেন, অনৈতিক অবস্থায় ওই নারী ধরা পরায় তাকে এলাকাবাসী নানাভাবে না/জেহা/ল করতে থাকে। এ সময় তাকে /ন্যা/ড়া/ করার সিদ্ধান্ত নেয়। আমি থানা পুলিশদের অবহিত করি। পুলিশ ঘটনাস্থলে না আসায় পরিস্থিতি খারাপ হয়। পরে সকলের সম্মতিতে এলাকাবাসী মী/মাং/সা করার জন্য বসে। মীমাংসায় ওই না/রীর সম্ম/তিক্রমে তালাক নামায় স্বাক্ষর নেয়া হয়। তারপর তাকে এলা/ কা ছাড়ার নির্দেশ দেয়া হয়।



এদিকে এ ব্যাপারে এনজিও শাখা ব্যবস্থাপক মাহবুব হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি সংবাদ মাধ্যমকে দাবি করেন, বাড়ি যাওয়ার কথা বলে ছুটি নেয় আনোয়ার। তবে বাড়ি যাওয়ার পরিবর্তে সে যে অপরাধ করেছে, তা তার নিজিস্ব ব্যাপার। এখানে তার কিছু বলার নেই বলে জানান নেই।