বাংলাদেশের পাপোর্টে স্বাধিনতার পর থেকে সব দেশে ভ্রমণের অনুমতি দেয়া হলেও একটি দেশ ছিল এই অনুমতির বাইরে, আর তা হলো ইসরাইল। তবে এবার সেই নিষেধাজ্ঞাও উঠিয়ে দিয়েছে সরকার। আর এ নিয়ে সারা দেশে নেই আলোচনা সমালোচনার শেষ।সম্প্রতি এ নিয়ে মুখ খুলেছেন দেশের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব জনাব আসিফ নজরুল। পাঠকদের উদ্দেশ্যে তার সেই লেখনি তুলে ধরা হলো হুবহু:-


নিষিদ্ধ ইসরায়েল
পাসপোর্ট থেকে যাতায়াত নিষিদ্ধ দেশ হিসেবে ইসরায়েলের নাম বাতিল করা ঠিক হয়নি বলে আমি মনে করি। ইসরায়েলের সাথে অন্য কোন মুসলিম দেশ সম্পক করেছে, ১৯৭১ সালে ইসরায়েলের কি ভূমিকা ছিল, আমাদের পাসপোর্ট-এর মান বাড়বে কিনা-এসব বিভ্রান্তিকর বা মিথ্যে যুক্তি।
ইসরায়েল নিষিদ্ধ দেশের তালিকায় ছিল বঙ্গবন্ধু সরকারের সিদ্ধান্তক্রমে, সংবিধানের ২৫ অনুচ্ছেদের আলোকে। যে বিবেচনায় ইসরায়েলকে সেখানে রাখা হয়েছিল তা আজো অব্যহত আছে। ইসরায়েল বরং আরো দখলদার হয়েছে, আরো বেশী বর্বর হয়েছে প্যালেষ্টাইনীদের সাথে।
আমার প্রশ্ন তাহলে কি কারণে ইসরায়েলকে নিষিদ্ধ দেশের তালিকা থেকে বাদ দেয়া হলো?
ভারতের সাথে ইসরায়েলের অতি ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের বিবেচনায়? বাংলাদেশে নাগরিক অধিকারের উপর খবরদারীমূলক ব্যবস্থায় ইসরায়েলী সহায়তার আশায়?
তীব্র প্রতিবাদ করছি সরকারের এই পদক্ষেপের।

এ দিকে সরকার থেকে জানানো হয়েছে ইসরাইলের নাম বাংলাদেশের পাসপোর্টের নিষেধাজ্ঞা থেকে বাতিল করা হলেও দেশটিতে ভ্রমনের উপর নিষেধাজ্ঞা থেকেই যাচ্ছে। তবে এ নিয়েও আছে নানা ধরনের তর্ক বিতর্ক।