বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, নির্বাচনে চুরি করা, ডাকাতি করা, চাপিয়ে দেয়া ফলাফল কখনোই মেনে নিবে না বিএনপি। এখন পর্যন্ত মামলা-গ্রেফতার অব্যাহত রেখেছে প্রশাসন। তাদের বলেও লাভ হচ্ছেনা। ভোট কেন্দ্রে যেন তারা আসতে না পারে সে ব্যবস্থা করা হচ্ছে। নেতাকর্মীদের হাতপা বেঁধে রেখে নির্বাচন করা এটা উদ্বেগজনক।
শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় ঠাকুরগাঁও শহরের কালীবাড়িস্থ নিজ বাসভবনে প্রেস কনফারেন্সে এসব কথা বলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের মুখপাত্র ও বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান সহ অনেকে ।
মির্জা ফখরুল অভিযোগ করে বলেন, ভোট শুরু হওয়ার আগেই আলাদা ব্যালট বাক্স রাখা হবে। সেখানে সীল মারা ব্যালট বোঝাই থাকবে। গণনা করার আগেই তা মিশিয়ে গণনা করা হবে। এধরনের নির্বাচন কেন? বললেই হয় আ.লীগ আজীবন ক্ষমতায় থাকবে। এসব নাটকের কোন প্রয়োজন নেই। তাহলে সব কিছু চুকে যাবে ।
সন্ত্রাস করছে আ’লীগ, রাষ্ট্র-সন্ত্রাস করছে মন্তব্য করে তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে এই নির্বাচন প্রহসনে পরিণত হয়েছে। ফলাফল কি হবে সেটা বোঝাই যায়। তার পরেও জনগণের উপর আস্থা আছে। ভোট দিতে আসবে জনগণ একটা পরিবর্তন হবে। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দৃঢ়তার সাথে বলেন, জনগণ ভোট দিতে পারলেই নিশ্চয় পরিবর্তন আসবে, ঐক্যফ্রন্ট জয়ী হবে। এই নির্বাচন ইতিমধ্যে প্রহসনে পরিণত হয়েছে।
ভোট বর্জন প্রসঙ্গে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা নির্বাচনের মাঠে আছি শেষ পর্যন্ত আছি । সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করে বলেন, তারা নির্বাচন এলাকার নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিচ্ছে। দলীয় নির্বাচনী এজেন্টের বিরুদ্ধেও মামলা করা হয়েছে।